আজ শুক্রবার ১ মার্চ ২০২৪, ১৮ই ফাল্গুন ১৪৩০

কদর বাড়ছে পেঁয়াজ পাতার

নিজস্ব প্রতিবেদক : | প্রকাশের সময় : রবিবার ১০ ডিসেম্বর ২০২৩ ১২:২০:০০ অপরাহ্ন | দেশ প্রান্তর

ভারতীয় পেঁয়াজ ডাবল সেঞ্চুরি করেছে খুচরা বাজারে। তাই কদর বাড়ছে পেঁয়াজ পাতা ও ফুলের।

 

 

রিয়াজউদ্দিন বাজারে আড়তে রোববার (১০ ডিসেম্বর) প্রতি কেজি পেঁয়াজ ফুলসহ পাতা বিক্রি হয়েছে ৩০ টাকা, খুচরায় ৫০-৬০ টাকা।  

 

নিউ সোনার বাংলা বাণিজ্যালয়ের ব্যবস্থাপক  জানান, ফরিদপুর থেকে পেঁয়াজের ফুলসহ পাতা আসছে।

 

এ জাতের বীজ লাগানো হয় পাতা বা ফুল বিক্রির জন্য। এক সপ্তাহ ধরে আসছে বাজারে। আজ প্রতি কেজি ২৫-৩০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। এক বস্তায় ৪০-৫০ কেজি থাকে। মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে ওজন স্কেল, পথখরচার কারণে সবজির দাম বেশি চট্টগ্রামে।  

রিয়াজউদ্দিন বাজারের খুচরা দোকানিরা প্রতি কেজি পেঁয়াজের ফুলসহ পাতা বিক্রি করছেন ৫০-৬০ টাকা। তারা বলেন, আড়ত থেকে এক বস্তা পেঁয়াজপাতা কিনতে লেবার চার্জ দিতে হয় ২০-২৫ টাকা। পচা, গলা, নষ্ট থাকে অনেক। তাই খুব বেশি লাভ হয় না।

 

বৌদ্ধ মন্দিরের সামনে নিয়মিত সবজি বেচেন মো. রহিম। তিনি জানান, প্রতি কেজি পেঁয়াজের ফুলসহ পাতা ৬০ টাকা। পেঁয়াজের দাম বেশি হওয়ায় পাতার কদর বেড়েছে।

 

গৃহিণী কামরুন নাহার বলেন, রাতারাতি পেঁয়াজ ডাবল সেঞ্চুরি করেছে। বাধ্য হয়ে দুধের স্বাদ ঘোলে মেটানোর মতো পেঁয়াজ পাতা কিনছি। তরকারিতে পেঁয়াজের সুবাস অন্তত মিলবে।

 

রিয়াজউদ্দিন বাজারের একজন খুচরা বিক্রেতা জানান, চীনা বড় লাল পেঁয়াজ ১৪০ টাকা, ভারতীয় লাল পেঁয়াজ ২০০ টাকা, সোনালি ১৮০ টাকা, দেশি ছোট পেঁয়াজ ২২০ টাকা বিক্রি হচ্ছে আজ।

 

খাতুনগঞ্জের আড়তে শনিবার পাইকারিতে বড় আকারের ভারতীয় পেঁয়াজ সর্বোচ্চ ১৮০ টাকা বিক্রি হয়েছে। বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার এ মানের পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছিল ১১০ টাকায়।  

 

শনিবার পেঁয়াজের বাজার তদারকিতে অভিযান চালিয়েছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর। অভিযানে চৌমুহনীর কর্ণফুলী মার্কেটের ফারুক স্টোরকে ৩০ হাজার, আলিফ ট্রেডার্সকে ২০ হাজার টাকা, খাতুনগঞ্জের বরকত ভাণ্ডারকে ২০ হাজার, এ এইস ট্রেডার্সকে ১০ হাজার, এ কে ট্রেডার্সকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।