চট্টগ্রাম, শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১

প্রকাশ :  ২০২১-১০-১৪ ২২:২৬:০৩

সীতাকুন্ডে গুলিয়াখালী সমুদ্র সৈকত হবে বিশ্বমানের বীচ

নাছির উদ্দিন শিবলু, সীতাকুন্ড :
প্রকৃতিক নিজস্ব নিয়মে ভিন্ন রুপ নিয়ে গড়ে উঠেছে গুলিয়াখালী সমুদ্র সৈকত। ঘাসে মুড়ানো বালুময় চরাঞ্চলের সুন্দর্য্য সাড়া জাগিয়েছে দেশী-বিদেশী প্রেমীদের। ভ্রমন পিপাসুদের মনে দাগ কাটানো সুন্দর্য্য আলোচনার ঝড় তুলে দেশ-বিদেশে। বীচের সুন্দর্য্যরে অপরুপ চিত্র নানাভাবে ছড়িয়ে পড়ায় অঘোষিত বীচকে স্বীকৃতি দিয়ে উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহন করেছে জেলা প্রশাসন।
সীতাকুন্ড বাজার হয়ে মহাসড়ক হতে প্রায় ৩ কিলোমটিার পশ্চিমে গুলিয়াখালী সমুদ্র সৈকতের অবস্থান। সমুদ্রে জল তরঙ্গ আর সবুজ চাদরে বিছানো সৈকত অবলোকনে প্রতিদিন ভীড় করে হাজারো পর্যাটক। পৌরসদর হতে সিএনজি বা ব্যক্তিগত পরিবহনে মাধ্যমে সহজে পাড়ি দেয়া যাই। এছাড়া নিরাপত্তা, খাওয়া ও আবাসিক হোটেলের সু-ব্যবস্থা থাকায় ঘোরাঘুরির রয়েছে দারুন সুযোগ।

বাস ও ট্রেনের সুবিধা থাকায় দুর-দুরান্তের পর্যটকদের যাতায়াত সহলভ্য। তাই পাহাড়-নদীর মিতালীতে পর্যটকের সুবিধা বিবেচনা করে গুলিয়াখালী সমুদ্র সৈকতকে পর্যটনের আওতায় আনতে নেয়া হচ্ছে মহাপরিকল্পনা। রাস্তার উন্নয়ন, হোটেল-মোটেল, রির্সোট গড়ে তুলতে ভূমি জরিপের মাধ্যমে দেয়া হয়ে প্রস্তাবনা। প্রস্তাব অনুমোদিত হলে বীচ উন্নয়নের মহা-পরিকল্পনা বাস্তবায়ীত হবে বলে জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।
তিনি বলেন,‘ পর্যটনের অপার সম্ভবনা হয়ে উঠেছে সীতাকুন্ড। খুব কাছ থেকে পাহাড়ী ঝর্ণা ও সমূদ্রের উত্তর তরঙ্গ উপভোগ করতে পারে পর্যটকরা। সুন্দর্য্য উপভোগে পর্যটকের ভীড় জমতে থাকায় গুলিয়াখালী সমূদ্র সৈকতকে পর্যটনে রুপ দিতে নেয়া হয়েছে মহাপরিকল্পনা। ইতিমধ্যে হাসপাতাল সম্মুখের দোয়াজী পাড়া সড়কটি ১৬ ফিট প্রসস্ত করে দুটি গাড়ি চলাচলের উপযোগী করার পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়েছে। এছাড়া দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে উপকূলে রির্সোটস তৈরীতে ভূমি জরিপ শেষে প্রস্তবনা পাঠানো হয়েছে। ধীরে ধীরে নানা পরিকল্পনা গ্রহন করে গুলিয়াখালী বীচকে বিশ্বমানের পর্যটন কেন্দ্র রুপ দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

আরো সংবাদ

%d bloggers like this: