চট্টগ্রাম, শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১

[bangla_day]

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০২১-১০-০১ ১৯:২৫:৫২

শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে বাংলাদেশের শুভ সূচনা

খেলাধুলা ডেস্ক :
সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার তপু বর্মণ। রক্ষণ সামলানোর পাশাপাশি তপু গোল করতেও সক্ষম। আজ তপুর পেনাল্টি থেকে করা গোলেই বাংলাদেশ সাফে শুভ যাত্রা করেছে। তপুর একমাত্র গোলে বাংলাদেশ ১-০ গোলে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়েছে। অস্কার ব্রুজনের জাতীয় দলের কোচ হিসেবে অভিষেক হলো জয় দিয়েই।

৫৭ মিনিটে বাংলাদেশ পেনাল্টি পায়। সেই পেনাল্টি থেকে গোল করেন তপু বর্মণ। ক্লাব ও জাতীয় দল উভয় ক্ষেত্রে পেনাল্টিতে গোলে সিদ্ধহস্ত তপু। আজও পেনাল্টি থেকে গোল করতে ভুল করেননি তিনি।

মধ্যমাঠ থেকে বক্সের উদ্দেশে বাড়ানো হয়েছিল বল। কিন্তু তা লঙ্কান ডিফেন্ডার ডাকসনের হাতে লাগে। বাংলাদেশের ফুটবলারদের আবেদনের আগেই সিরিয়ান রেফারি ফেয়ার্স টাওয়েল পেনাল্টির বাশি বাজান। লঙ্কান ফুটবলাররা রেফারির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানায়। এতে আরো বিপদ ডেকে আনেন তারা। হ্যান্ডবল করা ডাকসনকে আরেকটি হলুদ কার্ড দেখান রেফারি। দুই হলুদ কার্ডে ডাকসনকে মাঠ ছাড়তে হয়। লঙ্কান দল দশ জনে পরিণত হওয়ার সাথে সাথে বাংলাদেশ পেনাল্টিতে গোল করে।

দশ জনের বিপক্ষে বাংলাদেশ যতটুকু প্রাধান্য বিস্তার করে খেলার কথা ছিল ততটা পারেনি। ম্যাচের শেষ মুহুর্তে বিপলু আহমেদ, রাকিব হোসেন অনেকটা নিশ্চিত গোলের সুযোগ মিস করেন। ম্যাচের শেষ দিকে একদম বক্সের উপর ফ্রি কিক পায় বাংলাদেশ। অধিনায়ক জামালের নেয়া শট লঙ্কানদের তৈরি করা দেয়ালে প্রতিহত হয়।

বাংলাদেশ কোচ অস্কার ব্রুজন দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে সাদ উদ্দিনকে নামান জুয়েল রানার পরিবর্তে। সাদ নামার পর বাংলাদেশের আক্রমণে গতি কিছুটা বাড়ে। এরপর ইব্রাহিমের জায়গায় সুফিল ও সুমন রেজার জায়গায় মতিন মিয়াকে নামান অস্কার। পরিবর্তনগুলো বাংলাদেশের আক্রমণের ধার বাড়ালেও স্কোর বৃদ্ধিতে সহায়তা করতে পারেনি।

‘বাংলাদেশ,বাংলাদেশ’ শব্দে আগে থেকেই মুখরিত ছিল মালে জাতীয় স্টেডিয়াম। তপুর গোলের পর মালে স্টেডিয়াম গর্জে উঠে আরো। ভুভুজেলার শব্দে তখন কান পাতা দায়।

প্রথমার্ধে ম্যাচের সেরা আক্রমণটি ইনজুরি সময়ে। বা প্রান্ত থেকে ইয়াসিনের করা ক্রস তপু বক্সের মধ্যে ডাইভ হেড দেন। অন টার্গেট থাকা তপুর হেড লঙ্কান গোলরক্ষক বাম দিকে ঝাপিয়ে সেভ করেন। ১০ মিনিটে বিশ্বনাথ ঘোষের লম্বা থ্রো ডান প্রান্ত থেকে বক্সের মধ্যে জটলায় তপুর শট লংকান ডিফেন্ডারদের হাতে লাগে। বাংলাদেশের পেনাল্টির আবেদন নাকচ রেফারির। মাঝ মাঠের বল দখলের লড়াইয়ে ইয়াসিন আরাফাত হলুদ কার্ড দেখেন। রেফারির এই সিদ্ধান্তে টাচলাইনে বাংলাদেশের কোচ অস্কার ব্রুজন অসন্তোষ প্রকাশ করেন।

২৩ মিনিটে বাংলাদেশ প্রথম গোলমুখে শট নেয়। অধিনায়ক জামালের শট পোস্টের পাশ দিয়ে যায়। তীব্র গরমের জন্য ম্যাচের ২৬ মিনিটে এক মিনিটের কুলিং ব্রেক দেয়া হয়। ৩৩ মিনিট শ্রীলঙ্কা প্রথম কর্ণার পায়। তেমন বিপদজনক পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে পারেনি। উল্টো বাংলাদেশ কাউন্টার অ্যাটাকে খানিকটা গোলের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছিল। ফরোয়ার্ড জুয়েল রানা গোল আদায় করতে পারেননি। অনেক দিন পর জাতীয় দলে আসা জুয়েল নিজের আগের পারফরম্যান্স দেখাতে পারেননি।

তারিক কাজী ঘরোয়া ফুটবলে ফুলব্যাক পজিশনে খেললেও আন্তর্জাতিক ম্যাচে তাকে সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার হিসেবে খেলান অস্কার। আজকের ম্যাচেও তাকে সেন্ট্রালে খেলিয়েছেন। শ্রীলঙ্কা দল খুব প্রস্তুতি নিয়ে না আসলেও বাংলাদেশের সঙ্গে ভালোই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে। প্রথমার্ধে বাংলাদেশের গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকোকে তেমন পরীক্ষায় পড়তে হয়নি।

আরো সংবাদ

%d bloggers like this: