চট্টগ্রাম, বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১

[bangla_day]

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০২১-০৪-০৬ ০৯:৫৬:৪৫

বদলী হলেও সিএমপি ছাড়েননি এএসআই ফয়েজ

 মহিন উদ্দীন আরিফ:

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) বিভিন্ন থানায় কর্মরত ১২ জন উপ-পরিদর্শক (এসআই) ও ৩০ জন সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই)কে একযোগে বদলি করা হয়েছে। গত বছরের ২৫ অক্টোবর সিএমপির উপ-কমিশনার (সদর) আমীর জাফর এ অফিস আদেশ জারি করেন। দক্ষিণ জোনের সদরঘাট থানার এসআই তন্ময় ভট্টাচার্যসহ ১২ এসআই ও ৩০ এএসআই কে টুরিস্ট পুলিশ, নৌ পুলিশ, ব্যাটালিয়ন পুলিশ, রেলওয়ে পুলিশসহ পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের বদলির আদেশ দেওয়া হলে ইতিমধ্যে সবাই মোটামুটি সিএমপি থেকে চলে গেছেন। রহস্যজনক কারণে থেকে গেছেন সদরঘাট থানার এএসআই ফয়েজ আহম্মদ। সদরঘাট থানা এলাকাবাসীর অভিযোগ তিনি এখনও সিভিল টিম বহাল রেখেছেন, তার বিরুদ্ধে রয়েছে সাধারণ মানুষকে হয়রানিসহ একাধিক অভিযোগ। সদরঘাট থানা এলাকার সাধারণ ব্যবসায়ী ও এলাকার বিভিন্ন গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ বর্তমান কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীরের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন। সাম্প্রতি ডবলমুরিং থানাধীন আগ্রাবাদ এলাকায় পুলিশি নির্যাতন, মা-বোন লাঞ্ছিত হওয়ার অপমান সইতে না পেরে সিলিংফ্যানে ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করে দশম শ্রেণীর ছাত্র মারুফ। এ ঘটনার পরই নতুন করে আলোচনায় আসে সিভিল টিম। তৎকালীন সিএমপি কমিশনার মাহাবুবর রহমান স্ব-স্ব জোনের ডিসিদের মারফৎ থানা ভিত্তিক তালিকা তৈরী করে এই বদলির আদেশ দেন৷ সিএমপি কমিশনার বলছেন, সার্বক্ষণিক সিভিল টিম পরিচালনার সুযোগ নেই। শুধু মাত্র জরুরি প্রয়োজনে সিনিয়র অফিসারদের অনুমতি নিয়ে আসামি ধরার কৌশল হিসেবে সিভিল টিম পরিচালনা করা যাবে। এছাড়া এই টিমের অপব্যবহার করে অপরাধ বা অন্যায় করলে বিধি অনুযায়ী শাস্তি অনিবার্য। এই বিষয়ে জানতে চাইলে সদরঘাট থানার বর্তমান সিভিল টিমের প্রধান এ এস আই ফয়েজ আহম্মদ দৈনিক সাঙ্গুকে বলেন, গত বছরের ২৫ অক্টোবর আমার পুষ্টিং হয়েছে রেলওয়ে পুলিশে। আমি যাওয়ার জন্য আগ্রহী কিন্তু আমার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা আমাকে যেতে দিচ্ছে না। উনারা এ বিষয়ে ভালো বলতে পারবেন কেন আমাকে যেতে দিচ্ছেন না গত বছরের ২৫ শে অক্টোবরের ত্রিশ জন এ এস আই পুষ্টিং এর আদেশ বহাল আছে কিনা জানতে চাইলে দক্ষিণ বিভাগের আরো এস আই মাসুদ দৈনিক সাঙ্গুকে বলেন, গত বছরের ২৫ অক্টোবর ত্রিশ জন এ এস আই পুষ্টিং এর আদেশ এসেছেন পুলিশ হেডকোয়ার্টার থেকে দক্ষিণ বিভাগের ডিসি বরাবর, আমরা ওই আদেশটি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বরাবর পাঠিয়ে দিয়েছি। কি কারনে এ এস আই ফয়েজ আহমেদ এখনো দক্ষিণ বিভাগের সদরঘাট থানা বহাল রয়েছেন এই বিষয়ে আমাদের ডিসি স্যার ও ওসি স্যার বলতে পারেন। সদরঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি সাখাওয়াত হোসেন দৈনিক সাঙ্গুকে বলেন, পুলিশ হেডকোয়ার্টার থেকে এ এস আই ফয়েজ আহম্মদ পুষ্টিংয়ের আদেশ এসেছে ঠিক আছে, কিন্তু পুরো বিষয়টাই পুলিশের ম্যাটার, কে কখন পুষ্টিং হয়েছে কোথায় যাবে এটা নিউজ এর বিষয় না এটা হচ্ছে পুলিশের ম্যাটার। গতবছরের পুষ্টিং এখনো বহাল এ বিষয়ে জানতে চাইলে দক্ষিণ জোনের এডিসি পলাশ দৈনিক সাঙ্গুকে বলেন, গত ২৫ শে অক্টোবর পুলিশ হেডকোয়ার্টার থেকে ৩০ জন এ এস আই পুষ্টিং এর আদেশ এসেছে ঠিক আছে, আমরা সেটি রিপ্লেস করতেছি আস্তে আস্তে মাঝে মধ্যে দুইএকজন করে পুষ্টিং দিয়ে দিচ্ছি। সদরঘাট থানার সিভিল টিমের প্রধান এ এস আই ফয়েজ আহম্মদ গতবছরের পুষ্টিং এখনো বহাল রয়েছে, এমন এক প্রশ্নের জবাবে এডিসি পলাশ বলেন,বাকি গুলো অফিসিয়াল সিস্টেমে বদলি হবে।

আরো সংবাদ