চট্টগ্রাম, বুধবার, ৩ মার্চ ২০২১

প্রকাশ :  ২০২১-০২-২০ ১৭:২৬:১৬

আনোয়ারায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগ নেতা আশরাফ খুন,রাস্তায় ব্যারিকেড, থানায় মামলা

আনোয়ারা প্রতিনিধি :

আনোয়ারায় ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আশরাফ উদ্দিন চৌধুরী (১৮) নামে ছাত্রলীগের এক কর্মীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে। গত শুক্রবার(১৯ ফেব্রুয়ারী) রাত সাড়ে ৮টায় এ ঘটনা ঘটে। খুনের ঘটনায় ৫ জনকে আসামী করে নিহতের বাবা বাদী হয়ে আনোয়ারা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে। প্রতিবাদে ছাত্রলীগ কর্মীদের রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়েছে। হত্যাকান্ডে প্রধান আসামী দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের উপ ছাত্রবৃত্তি বিষয়ক সম্পাদক নয়ন সরকার বলে দাবী নিহতের পরিবারের। পুলিশ স্থানীয় কয়েকজন ছাত্রলীগ কর্মীকে জিজ্ঞাসাবাদসহ আসামীদের ধরতে রাতে বিভিন্ন জাগায় অভিযান চালালেও এখনো পর্যন্ত কোন আসামীকে ধরতে পারেনি।
আনোয়ারা থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহেরের আনুসারী দুই উপগ্রুপের কোন্দলের জেরে গতশুক্রবার রাত আনোয়ারা উপজেলার জয়কালী বাজারের মোড়ে স্থানীয় একটি কমিউনিটি সেন্টারের সামনে দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের উপ-ছাত্রবৃত্তি বিষয়ক সাংগঠনিক সম্পাদক নয়ন সরকারের নেতৃত্বে মহিউদ্দিন মানিক,মো. রাব্বি, নিসান বড়–য়া ও অনকন নন্দীসহ আরো কয়েকজন হামলা চালিযে মারধর করে। মারধরের পর ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। এ সময় স্থানীয় লোকজনও আশরাফের সহপাঠিরা তাকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। নিহত আশরাফের নোয়াখালী সুবর্ণচর থানার চরফ্যাশন গ্রামের মো. আবদুল্লাহর পুত্র। বিগত ১৫ বছর ধরে মা-বাবার সাথে আনোয়ারা সদরে ভাড়া বাসায় থাকে। তার নানার বাড়ী আনোয়ারা উপজেলার শিলাইগড়া গ্রামে। এদিকে আশরাফ হত্যাকান্ডের পর গতকাল শনিবার সকাল ১০ টায় ছাত্রলীগের একটি অংশ আনোয়ারা বরকল সড়কের সিংহরা রাস্তার মাথা এলাকায় ব্যাড়িকেড দিয়ে হত্যাকান্ডের প্রতিবাদ জানায়। পরে পুলিশ এসে তাদের ধাওয়া করে ব্যাড়িকেড তুলে দেন। ঘটনার পর থেকে পুরো আনোয়ারায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। হত্যাকান্ডের প্রধান আসামী নয়ন সরকারকে গ্রেপ্তার করার জোর দাবী উঠেছে।

এলাকায় আধিপত্য বিস্তার, মাদক ব্যাবসা নিয়ন্ত্রণ ও মারামারিসহ নানা অপকর্মে নয়ন সরকার ও তার ৫ সহযোগী নেতৃত্ব দিতেন বলে অভিযোগ। গতকাল শনিবার দুপুর ১২ টায় নিহতের মা জেসমিন আকতার (৫০) আনোয়ারা থানার বারান্দায় গড়াগড়ি দিয়ে আর্তনাত করে ছেলের হত্যাকান্ডের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবী করেন। তিনি সংবাদিকদের বলেন, আমার ছেলে অতি শান্তসৃষ্ট ও ভদ্র, আমার নিরপরাধ ছেলের হত্যাকারীদের বিচার চাই।
দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের জানান, আমি যেহেতু দক্ষিণ জেলার সাধারণ সম্পাদক আমার অনুসারী দলের মধ্যে থাকতেই পারে। কিন্তু হত্যারমত জগণ্য ঘটনায় যারা জড়িত তাদের প্রতি আমার কোন সমর্থন নেই। আশরাফ হত্যার ঘটনায় নয়ন সরকারকে বহিঃষ্কারের জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ করা হয়েছে। জড়িত অন্যদের বিরোদ্ধেও সাংগঠনিক ব্যবস্তা নেওয়া হবে।
আনোয়ারা থানার ওসি দিদারুল ইসলাম শিকদার জানান, দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহেরের অনুসারী দুটি উপগ্রুপের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে খুনের ঘটনাটি ঘটেছে। হত্যাকারীদের ধরতে পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান অব্যাহত রেখেছে। এ ঘটনায় নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

 

 

 

 

আরো সংবাদ