এই মাত্র পাওয়া :

বাংলাদেশ , শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১

অভিনেতা আমির সিরাজীর অবস্থা সংকটাপন্ন

লেখক : দৈনিক সাঙ্গু | প্রকাশ: ২০২০-১২-২৯ ২০:১৪:১৪

বিনোদন প্রতিবেদক :

অভিনেতা আমির সিরাজীর অবস্থা সংকটাপন্ন। তাকে ময়মনসিংহ থেকে ঢাকায় নিয়ে আসা হচ্ছে। এই অভিনেতাকে ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ভর্তি করা হবে বলে জানা গেছে।

এর আগে গত রোববার (২৭ ডিসেম্বর) ময়মনসিংহের একটি হাসপাতালে ভর্তির পরদিন তার হার্টে সমস্যা ধরা পড়ে। শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত থাকায় এই অভিনেতাকে চিকিৎসার জন্য আজ ঢাকায় আনা হচ্ছে।

আমির সিরাজীর অসুস্থতার খবর নিশ্চিত করেন তার বড় মেয়ে নূরজাহান সিরাজী। এই মুহূর্তে তিনি এই অভিনেতার দেখভাল করছেন।

নূরজাহান ময়মনসিংহ থেকে জানান, দুদিন আগে রাত ৮টার দিকে তার বাবা পান খেয়ে হঠাৎ প্রচণ্ড ঘামতে থাকেন। এরপর তার বুকে ব্যথা শুরু হয়। বাসায় প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হলেও তার শারীরিক অবস্থা ক্রমেই খারাপ হতে থাকে। সঙ্গে সঙ্গে এই অভিনেতাকে ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের একটি হাসপাতালে নেয়া হয়।

শারীরিক অবস্থার অবনতি পর সেখান থেকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর পরও আমির সিরাজীর শারীরিক অবস্থার কোনো উন্নতি না হওয়ায় তাকে ঢাকায় আনার সিদ্ধান্ত হয়।

নূরজাহান সিরাজী গণমাধ্যমকে বলেন, ‘বাবার শারীরিক অবস্থা গুরুতর। ডাক্তার ঢাকায় পাঠাতে বলেছেন। আমরাও চাচ্ছি ঢাকায় গিয়ে বাবার চিকিৎসা করাতে।’

তিনি জানান, তার বাবা ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপসহ বেশকিছু সমস্যায় ভুগছিলেন। ঢাকায় সব ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তার চিকিৎসা শুরু হবে। তার বাবা এই মুহূর্তে কথা বলতে পারছেন না। কথা বলতে চাইলে জড়িয়ে যাচ্ছে।

আমির সিরাজী যাত্রাপালায় অভিনয়ের মাধ্যমে তার ক্যারিয়ার শুরু করেন। ১৯৮৪ সালে নতুন মুখের সন্ধানের বিজ্ঞাপন দেখে তিনি ঢাকায় আসেন। তিনি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের প্রতি আগ্রহী হয়ে ওঠেন। তার অভিনীত প্রথম ছবি ইবনে মিজান পরিচালিত ‘পাতাল বিজয়’।

আমির সিরাজীর মুক্তিপ্রাপ্ত প্রথম চলচ্চিত্র মতিন রহমান পরিচালিত ‘রাধা কৃষ্ণ’। ছবিটি ১৯৮৫ সালের ৫ জানুয়ারি মুক্তি পায়। প্রায় তিন যুগের ক্যারিয়ারে তিনি সাত শতাধিক ছবিতে অভিনয় করেছেন।

এই অভিনেতা ১৯৯১ সালে বিটিভির তালিকাভুক্ত শিল্পী হন। তিনি চেয়েছিলেন সিনেমার পাশাপাশি নিয়মিত নাটকেও অভিনয় করবেন। কিন্তু চলচ্চিত্রের ব্যস্ততায় নাটকে তার খুব বেশি অভিনয় করা হয়ে ওঠেনি।

Print Friendly and PDF