এই মাত্র পাওয়া :

বাংলাদেশ , বুধবার, ২ ডিসেম্বর ২০২০

পরিবেশ আইন তোয়াক্কা না করায় ইন্টারন্যাশনাল টোবাকো ইন্ডাস্ট্রিজ সিলগালা করলো পরিবেশ অধিদপ্তর

লেখক : দৈনিক সাঙ্গু | প্রকাশ: ২০২০-১১-১২ ০১:৩৮:১৪

মোহাম্মদ মহিন উদ্দিন আরিফ : 

দুই বার জরিমানা খেয়েও ছাড়পত্র গ্রহণের নির্দেশনার তোয়াক্কা না করে দীর্ঘ দিন ধরেে কার্যক্রম পরিচালনার দায়ে চট্টগ্রামের ‘ইন্টারন্যাশনাল টোবাকো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড’ নামের একটি তামাক উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকে সিলগালা করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম মহানগর কার্যালয়।

একই সাথে প্রতিষ্ঠানটির গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংযোগও কেটে দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (১১ নভেম্বর) প্রতিষ্ঠানটিতে এনফোর্সমেন্ট অভিযান চালিয়ে এ সব পদক্ষেপ গ্রহণ করেন পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম মহানগর কার্যালয়ের পরিচালক মোহাম্মদ নূরুল্লাহ নূরী।

মোহাম্মদ নূরুল্লাহ নূরী জানান, বার বার সতর্ক করা স্বত্ত্বেও পরিবেশগত ছাড়পত্রবিহীন অবৈধভাবে প্রতিষ্ঠান পরিচালনার দায়ে এনফোর্সমেন্ট অভিযান চালিয়ে চাঁন্দগাও শিল্প এলাকার ‘ইন্টারন্যাশনাল টোবাকো ইন্ডাস্ট্রিজ’ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

এর আগে, পরিবেশগত ছাড়পত্রবিহীন কার্যক্রম চালানোর দায়ে গত বছরের ৪ সেপ্টম্বর ‘ইন্টারন্যাশনাল টোবাকো ইন্ডাস্ট্রিজ’কে ৭০ লাখ লক্ষ টাকা পরিবেশগত ক্ষতিপূরণ আরোপ করে পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম মহানগর। একই সাথে ক্ষতিপূরণের অর্থ পরিশোধ ও ছাড়পত্র প্রাপ্তির পূর্ব পযন্ত প্রতিষ্ঠানটির উৎপাদন কাযক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়। প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ এ আদেশের বিরুদ্ধে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণায়ের সচিব বরাবর আপিল করেন। শুনানীর জন্য একাধিক ধার্যকৃত দিনে আপীলকারী অনুপস্থিত থাকায় গত ২৪ মার্চ আপীলকারীর আবেদন খারিজ করে দেন সচিব।

পরবর্তী আবারও পরিবেশগত ছাড়পত্র গ্রহণ ব্যতীত প্রতিষ্ঠান কাযক্রম অব্যাহত রাখার কারণে গত ১ জুলাই প্রতিষ্ঠানটির কর্তৃপক্ষকে শুনানীর নোটিশ দেয় পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম মহানগর।

এর পর গত ৭ জুলাই শুনানী করে প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ফের দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ আরোপ করা হয়। এবারও ক্ষতিপূরণের অর্থ পরিশোধ ও পরিবেশগত ছাড়পত্র প্রাপ্তির পূর্ব পযন্ত প্রতিষ্ঠানটির উৎপাদন কাযক্রম বন্ধ রাখার জন্য নির্দেশ দেয় পরিবেশ অধিদপ্তর। এর পরেও পরিবেশগত ছাড়পত্রের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দাখিল না করেই প্রতিষ্ঠানটি কাযক্রম অব্যাহত রাখে।

সহকারি পরিচালক মিয়া মাহমুদুল হক দৈনিক সাঙ্গুকে বলেন,বার বার পত্র মারফত ও মৌখিকভাবে নির্দেশনা প্রদান স্বত্ত্বেও পরিবেশগত ছাড়পত্র গ্রহণের জন্য কোন পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় আজ বুধবার এনফোর্সমেন্ট অভিযানের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটির গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংযোগ কেটে দেওয়ার পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ করে দেয়া হয়।

অভিযানে চাঁন্দগাও থানার পুলিশ, র‌্যাব ৭, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড, কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেড ও চট্টগ্রাম ওয়াসার সংশ্লিষ্ট জোনের টীম অংশগ্রহণ করে।

Print Friendly and PDF