এই মাত্র পাওয়া :

বাংলাদেশ , মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

রাউজানে যানজট নিরসনে এএসপি শামীমের দিনব্যাপী অভিযান

লেখক : admin | প্রকাশ: ২০২০-০৯-১৬ ১১:০৭:৪৫



রাউজান প্রতিনিধি :

“আমরা নিজেরাই যদি নিয়ম ভঙ্গ করি, তাহলে জনসাধারণকে কিভাবে নিয়ম মানতে বলবো। আগে আমাদেরকে যথাযথ আচরণ করে মডেল স্থাপন করতে হবে, যেন অন্যরা সেটা অনুসরণ করতে পারেন।”
আজ মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়কে ট্রাফিক শৃংঙ্খলা ফেরাতে অভিযান পরিচালনা কালে পথেরহাটে রাস্তার অদূরে ট্রাফিক পুলিশের কয়েকটি মোটর সাইকেল বিশৃঙ্খলভাবে দাঁড় করিয়ে রাখা অবস্থায় দেখতে পেয়ে উপস্থিত ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর (টিআই) প্রিয়দর্শী চাকমাকে উদ্দেশ্যে এসব কথা বলেন চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (রাঙ্গুনিয়া সার্কেল) মো. আনোয়ার হোসেন শামীম। আজ বেলা ১১ টা হতে শুরু করে উত্তর চট্টগ্রামের ব্যস্ততম এই সড়কের রাউজান অংশের নোয়াপাড়া পথেরহাট, পাহাড়তলী চৌহমুনিসহ যানজটপ্রবণ বিভিন্ন বাজার ও মোড়ে দিনব্যাপী এ অভিযান পরিচালিত হয়। অভিযানকালে বিশৃঙ্খলভাবে রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা বিভিন্ন যানবাহনকে নিয়ম মেনে কার্যক্রম পরিচালনা করতে বাধ্য করেন এএসপি মো. আনোয়ার হোসেন শামীম। বন্ধ করেন রাস্তার ওপর যাত্রী ওঠানামাসহ ট্রাফিক আইন পরিপন্থী অন্যান্য কার্যাবলিও। সাধারণ চালক ও মালিকদের উদ্দেশ্যে তিনি দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্যও প্রদান করেন এ সময়। মঙ্গলবার বেলা ২ টায় সরেজমিন পরিদর্শনে চট্টগ্রাম-কাপ্তাই গিয়ে ট্রাফিক পরিস্থিতির লক্ষনীয় উন্নতি দেখতে পাওয়া যায়। খুব কম ক্ষেত্রেই চালকেরা রাস্তায় যাত্রী তুলছেন, সিরিয়ালের সিএনজিগুলোও রাস্তার দুপাশে সারবেঁধে দাঁড় করানো। রীতিমতো পিলার গেড়ে লাল রঙের রশি বেঁধে যাত্রী ওঠানামার স্থান নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। চলাচলকারী যানবাহনগুলোকেও কোনরকম বাঁধা ছাড়া নির্বিঘ্নে যাতায়াত করতে দেখা যায়। এ ছাড়া বাজার কমিটিসমূহের উদ্যোগে দিনভরই ট্রাফিক সচেতনতা এবং যানজট প্রতিরোধে করনীয় সম্পর্কে চলেছে মাইকিং। যানজট নিরসনে পুলিশের এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন স্থানীয় অধিবাসীরাও।


মো. হানিফ নামে এক যাত্রী বলেন, আমি এই রাস্তার গাড়িওয়ালাদেরকে এভাবে নিয়ম মেনে চলতে কোনদিন দেখি নাই। দুই মিনিটের জায়গায় যেতে দশ মিনিট লাগে। এটা খুব ভাল কাজ হয়েছে। পুলিশের এসপি সাবকে ধন্যবাদ যে, তিনি আমাদের কথা ভাবছেন। কিন্তু এরকম যেন সবসময় থাকে, এই জন্য রাস্তায় বেশি করে ট্রাফিক দেওয়া দরকার। যারাই নিয়মের বাইরে যাবে তাদেরকে ধরে থানায় নিয়ে জেল দেওয়া দরকার। পাহাড়তলী চৌহমুনী ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক এসএএম রুবেল বলেন, বাজারে যত্রতত্রভাবে গাড়ি দাঁড় করানোর কারণে সবসময় যানজট লেগেই থাকত।
আজ (মঙ্গলবার) অভিযানের পর হতেই সড়কে শৃঙ্খলা ফিরে এসেছে। তিনি এই অভিযানের জন্য ব্যবসায়ীদের পক্ষ হতে সহকারী পুলিশ সুপারকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, এই অভিযান অব্যাহত থাকলে চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়ক হবে এই অঞ্চলের একমাত্র যানজটমুক্ত ও নিরাপদ সড়ক।


এ প্রসঙ্গে সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মো. আনোয়ার হোসেন শামীম বলেন, চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়কের অসহনীয় যানজট নিরসনেকল্পে চট্টগ্রাম জেলার মাননীয় পুলিশ সুপার এসএম রশিদুল হক পিপিএম মহোদয়ের নির্দেশে এই কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। যে কোনমূল্যে জনগণের রাস্তায় জনগণের চলাচলের জন্য উন্মুক্ত রাখা হবে। রাস্তায় স্বেচ্ছাচারী আচরণের মাধ্যমে নাগরিকদের জান, মাল ও সময়ের ক্ষয়সাধন কোনভাবেই বরদাস্ত করা হবে না। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জনস্বার্থে এই অভিযান অব্যাহত রাখার ঘোষণাও দেন।
অভিযানকালে বিভিন্ন বাজার ও যানবাহন কমিটির নেতৃবৃন্দ এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিবর্গ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন রাউজান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল হারুনসহ একদল পুলিশ।

Print Friendly and PDF