এই মাত্র পাওয়া :

বাংলাদেশ , রোববার, ৯ আগস্ট ২০২০

‘শুটিংয়ের দা দিয়ে হিরো আলম আমাকে কোপ মারে’

লেখক : admin | প্রকাশ: ২০২০-০৭-২৪ ১৮:২৭:১৭



বিনোদন প্রতিবেদক :


‘সাহসী হিরো আলম’ ছবিতে সেকেন্ড ভিলেন (দ্বিতীয় খলনায়ক) হিসেবে অভিনয়ের জন্য ১৫ হাজার টাকায় হিরো আলমের সঙ্গে আমার চুক্তি হয়। চুক্তি অনুযায়ী গাজীপুরের মনপুরা শুটিং স্পটে কিছু দিন অভিনয় করি। এর মধ্যে আমি ঢাকার বাসায় ফিরে আসি। গাজীপুরের আরেকটি শুটিং স্পটে টাকার জন্য গেলে হিরো আলম আমাকে শুটিংয়ের দা দিয়ে কোপ মারে। শুটিংয়ের দা-এর ধার না থাকায় আমি বেঁচে যাই।



শুটিংয়ের টাকা না দিয়ে মারধর করার অভিযোগে আশরাফুল ইসলাম আলম ওরফে হিরো আলমের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) মামলা করেছেন জুনিয়র আর্টিস্ট নয়ন মণ্ডল ওরফে জুনিয়র মিশা। মামলার পর তিনি এসব কথা বলেন।
নয়ন মণ্ডল বলেন, ‘চুক্তি অনুযায়ী গাজীপুরের মনপুরা শুটিং স্পটে অভিনয় করতে যাই। যেখানে কিছুদিন অভিনয় করি। এর মধ্যে ঢাকায় আসার সময় সে আমার হাতে ৫০০ টাকা ধরিয়ে দিয়ে বলেন, টাকা পরে দেব। আমি বাসায় এসে কিছুদিন পর তার মোবাইলে ফোন দেই। সে ফোনে আমাকে একদিন বলেন, কিসের টাকা পাবি তুই। তুই কোনো টাকা পাবি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘এরপর সে আমার ফোন ধরত না। গাজীপুরে ছবির শুটিংস্থলে আমি যাই। টাকা চাইলে হিরো আলম আমাকে শুটিংয়ের দা দিয়ে আঘাত করে। কিল-ঘুষি মারে। আমি সেখান থেকে চলে আসি। তার সঙ্গে কয়েকজন লোক ছিল। এরপর ১৯ জুন এফডিসিতে মানববন্ধনে অংশ নিতে আমি যাই। হিরো আলম আমাকে সেখানে মারধর করেন। হিরো আলমের লোকজনের ভয়ে আমি জীবন নিয়ে শঙ্কায় আছি।’



হিরো আলমের বিরুদ্ধে করা মামলাটি তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানাকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

জুনিয়র মিশার আইনজীবী মকিম মণ্ডল বলেন, ‘হিরো আলমের বিরুদ্ধে নয়ন মণ্ডল ওরফে জুনিয়র মিশা একটি মামলা করেছেন। আদালত মামলাটি ১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানাকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।
তবে মামলার বিষয়ে হিরো আলম বলেন, ‘আমাকে অপমান করার জন্যই এই মামলা করা হয়েছে। আমাকে নিয়ে কিছু করলেই এখন খুব সহজে ভাইরাল হওয়া যায়। এইসব ছোটখাটো বিষয় নিয়ে বলতে ইচ্ছে করে না। এক বছর আগে নয়ন আমার ‘সাহসী হিরো আলম’ ছবিতে অভিনয় করেছে। মাত্র একটা দৃশ্যে অভিনয় করেছে সে। শুটিং করেছে একদিন। এক বছর পরে সে কোন হিসেবে টাকা চাচ্ছে আমি বুঝলাম না। একটা ফাইটিং দৃশ্যে অভিনয় করেছে। এমন দৃশ্য অভিনয় করার জন্য আমরা খুব বেশি হলে এক থেকে দুই হাজার টাকা দিয়ে থাকি। এতদিন পরে কেনো টাকা দাবি করছে সেটা আমারও প্রশ্ন!’



সম্প্রতি সুপারস্টার অনন্ত জলিলের সিনেমায় কাজ করা নিয়ে বেশ আলোচনায় রয়েছেন হিরো আলম। অনন্ত জলিলের সিনেমায় কাজ করার জন্য হিরো আলমের সঙ্গে চুক্তি করা হয়। চুক্তি অনুযায়ী হিরো আলমকে সাইনিং মানিও দেন অনন্ত। তবে পরবর্তীতে আচরণগত কারণ দেখিয়ে হিরো আলমকে সিনেমা থেকে বাদ দেন ঢাকাই সিনেমার এ সুপারস্টার। এই নিয়ে হিরো আলমের হয়ে ভিডিও বার্তা দেন বিতর্কিত প্রবাসী সেফাতুল্লাহ ওরফে সেফুদা। এই নিয়ে পাল্টা ভিডিও দেন অনন্ত জলিলও। যদিও শেষ পর্যন্ত এ নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেন সেফুদা।

Print Friendly and PDF