এই মাত্র পাওয়া :

বাংলাদেশ , শুক্রবার, ২ অক্টোবর ২০২০

সীমিত পরিসরে কার্যক্রমের সময় বাড়তে পারে ঈদ পর্যন্ত

লেখক : admin | প্রকাশ: ২০২০-০৬-৩০ ১৭:৩১:৫২



নিজস্ব প্রতিবেদক :


সীমিত পরিসরে সরকারি-বেসরকারি অফিস আদালতের কার্যক্রম ঈদুল আযহা পর্যন্ত বাড়াতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে। আগামী ৩ আগস্ট পর্যন্ত সীমিত পরিসরে সবকিছু খোলা রাখার বিষয়ে সরকারের উচ্চ পর্যায়ে এ আলোচনা চলছে।



টানা ৬৬ দিনের সাধারণ ছুটির পর সরকার গত ৩১ মে থেকে সারাদেশে সীমিত পরিসরে অফিস, গণপরিবহণ, মার্কেটসহ অন্যান্য কার্যক্রম চালু করে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার গত ২৬ মার্চ থেকে সারাদেশে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছিল। কিন্তু ভাইরাসের সংক্রমণ যখন দ্রুত সারাদেশে ছড়িয়ে পড়ছে তখন সরকার সকল কার্যক্রম সীমিত পরিসরে চালু করে। সেই কার্যক্রমকেই আপাতত অব্যাহত রাখার চিন্তা-ভাবনা চলছে। এক্ষেত্রে সরকারি নির্দেশনার কিছু পরিবর্তন আসতে পারে।

গত ১৫ জুন থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত সীমিত পরিসরে সবকিছু পরিচালনার মেয়াদ ১৫ দিন বাড়ানো হয়েছিল। আজ সেটার শেষ দিন। আজ বিকালে মধ্যে প্রজ্ঞাপন জারি হতে পারে। চলমান সীমিত পরিসরের ধারাবাহিকতায় এবার সেটা আরও বড় পরিসরে বাড়ানোর চিন্তা হচ্ছে। সাধারণ ছুটি শেষে জুন মাসব্যাপী যেভাবে সীমিত পরিসরে অফিস, গণপরিবহন ও অন্যান্য কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে, একইভাবে আগামী ৩ আগস্ট পর্যন্ত সব কিছু চলার সিদ্ধান্ত আসতে পারে। তবে ঈদের ছুটিতে জরুরি পরিসেবার বাইরে সবকিছু বন্ধ থাকবে। কিন্তু সিদ্ধান্ত কিছু নির্ভর করছে প্রধানমন্ত্রীর সম্মতির উপর। উল্লিখিত একটি প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর বরাবর পাঠানো হয়েছে। তার সায় পেলে আজই প্রজ্ঞাপন জারি হবে।
মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে সর্বশেষ জারি করা প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যার ভিত্তিতে রাজধানীসহ সারাদেশের সব এলাকা রেড, ইয়েলো ও গ্রিন জোনে ভাগ করার কথা। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি কোভিড-১৯ রোগী থাকা রেড জোনে থাকবে সাধারণ ছুটি। ইয়েলো ও গ্রিন জোনে থাকবে বিশেষ সতর্কতা। এ পর্যন্ত দেশের ১৯টি জেলার প্রায় অর্ধশত এলাকা রেডজোন ঘোষণা করে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম হাতে নিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। ঢাকার প্রথম পরীক্ষামূলক লকডাউন শেষ হয়েছে রাজাবাজারে। দ্বিতীয়টি শুরু হতে যাচ্ছে ওয়ারীতে।



মন্ত্রিপরিষদের সর্বশেষ প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়েছে, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের অনুরোধে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ কেন্দ্রীয়ভাবে লকডাউন সংক্রান্ত বিষয়গুলো সমন্বয় করবে। বড় শহর এলাকার সমন্বয় করবে সিটি কর্পোরেশন আর জেলা-উপজেলায় নেতৃত্ব দেবে জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসন।

প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, রেড জোনে অবস্থিত সামরিক-বেসামরিকসহ সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, আধাস্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি দফতরের কর্মচারী-কর্মকর্তারা সাধারণ ছুটির আওতায় থাকবেন।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, সিটি কর্পোরেশন এলাকায় অঞ্চলভিত্তিক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করার সার্বিক দায়িত্ব থাকবে সিটি কর্পোরেশনের। সিটি কর্পোরেশন এলাকার বাইরে জেলা প্রশাসন সমন্বয় করবে। স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান, জেলা-উপজেলা প্রশাসন, স্বাস্থ্য বিভাগ, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ অন্যান্য সংশ্লিষ্ট দফতর সমন্বিতভাবে এ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করবে। এতে সংসদ সদস্যসহ অন্যান্য জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা, স্বেচ্ছাসেবীসহ অন্যদের সম্পৃক্ত করতে হবে।

Print Friendly and PDF