বাংলাদেশ , শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০

রামগড়ে বিয়ের প্রলোভনে স্কুলছাত্রী ধর্ষণে ৮ মাসের অন্ত:সত্বা, ধর্ষক গ্রেফতার

লেখক : admin | প্রকাশ: ২০২০-০৬-২৭ ১৬:২৫:৫৯



রামগড় প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ির রামগড়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক স্কুল ছাত্রীকে টানা ৬ মাস ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে এক বখাটের বিরুদ্ধে। বর্তমানে মেয়েটি ৮ মাসের গর্ভবতী বলে পুলিশ জানিয়েছে। অভিযোগ পেয়ে পুলিশ ধর্ষক দীপ্ত ত্রিপুরাকে গ্রেফতার করেছে। সে রামগড় পৌরসভার ডেবারপাড় এলাকার ভূবন মোহন ত্রিপুরার ছোট ছেলে।



জানা গেছে, ধর্ষনের শিকার মেয়েটি রামগড় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। উপজেলার পাতাছড়া ইউনিয়নের বেলছড়ি গ্রামের পিতা হাসিরাম ত্রিপুরা দরিদ্র হওয়ায় মেয়েকে স্কুল হোস্টেলে রেখে পড়ালেখা করাচ্ছিলেন এক পর্যায়ে পূর্ব পরিচিতির সুবাধে ধর্ষকের মা তার মেয়েকে সাংসারিক কাজে সহযোগীতার কথা বলে তাদের বাড়িতে নিয়ে যায় পাশাপাশি লেখাপড়াও চালিয়ে যাচ্ছিলো মেয়েটি। সে সুযোগে দীপ্ত ত্রিপুরা মেয়েটিকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দৈহিক সম্পর্ক গড়ে তুলে। এক পর্যায়ে মেয়ে অন্তঃসত্বা হয়ে পড়লে বিষয়টি নিয়ে মেয়ের পরিবার ত্রিপুরা কল্যান সংসদের বিচারপ্রার্থী হয়। কিন্তু ২ দফায় বিচারে বসেও কোন সুরাহা করতে না পারায় মেয়ের পিতা রামগড় থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন।

ধর্ষিতার বাবা হাসিরাম জানান, তার অপ্রাপ্ত বয়স্ক মেয়েকে পুশলিয়ে এ অপকর্ম করে। সামাজিক ভাবে ২ বার বিচার প্রার্থী হয়েও আসামী পক্ষ প্রভাব দেখিয়ে বিচার না মানায় তিনি থানায় মামলা করেন।

অন্ত:সত্বা স্কুলছাত্রীটি জানান, বিয়ের ফলোবনে বিভিন্ন সময় তাকে একাদিকবার ধর্ষণ করা হয়। পরে সন্তান সম্ভব হলে বিয়ের কথা বললে ধর্ষক অস্বিকৃতি জানায়।



রামগড় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ সামসুজ্জামান জানান, অভিযোগ পেয়ে শুক্রবার রাত ২টায় আসামি ধর্ষক দীপ্ত ত্রিপুরা গ্রেফতার করা হয়। আসামীকে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। আদালতের সিন্ধান্ত অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Print Friendly and PDF