এই মাত্র পাওয়া :

বাংলাদেশ , শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০

করোনার প্রাদুর্ভাব থেকে মুক্তি কামনায় যুবসেনা ও ছাত্রসেনার মিলাদ মাহফিল

লেখক : admin | প্রকাশ: ২০২০-০৫-১৭ ১৭:০১:০৪



নিজস্ব প্রতিবেদক:

 

বাংলাদেশ ইসলামী যুবসেনা ও ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম উত্তর জেলার আয়োজনে আজ রবিবার বিকালে শোহাদায়ে বদরের আলোচনা, ছাত্রসেনা কর্মী শহীদ নঈম উদ্দিনের স্বরণ সভা ও কাতার সিরাতুল মুস্তাকিম ফাউন্ডেশনের সাবেক-বর্তমান নেতৃবৃন্দের মরহুম পিতা মাতার মাগফেরাত কামনায় এবং বৈশ্বিক মহামারী হতে মুক্তি কামনায় পবিত্র খতমে কুরআন, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল উত্তর সর্তা খানাক্বাহ্ শরীফ-এ অনুষ্ঠিত হয়।

এতে মুনাজাত পরিচালনা করেন আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত রাউজান উপজেলা উত্তরের সাধারণ সম্পাদক হযরত মাওলানা ইদ্রিস আনসারী।



বক্তব্য রাখেন ইসলামী ফ্রন্ট ইউনিয়ন শাখার সভাপতি আলহাজ্ব মাওলানা আলী সিদ্দিকী, যুবসেনা চট্টগ্রাম উত্তর জেলা সাধারণ সম্পাদক যুবনেতা মো. আলমগীর হোসাইন, যুবনেতা মুহাম্মদ হুমায়ুন কবির ফয়েজ, যুবনেতা মুহাম্মদ আব্দুর রহমান, যুবনেতা মুহাম্মদ আবু রায়হান, ছাত্রসেনা উত্তর জেলা সাধারণ সম্পাদক কে এম আজাদ রানা, মুহাম্মদ নেজাম উদ্দিন সিদ্দিকি, সিরাতুল মুস্তাকিম ফাউন্ডেশন কাতারের সহ সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইলিয়াছ রেজা, মোহাম্মদ সালাউদ্দিন, মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, মুহাম্মদ শহিদুল আলম রানা, মোহাম্মদ জয়নাল আবেদীন, মো. সাইফুল ইসলাম, যুবনেতা মো. নুরুল ইসলাম, যুবনেতা মাসুদ পারভেজ, ছাত্রনেতা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, মোহাম্মদ ফারহান, মুহাম্মদ ইমতিয়া এবং মুহাম্মদ আকবর।



বক্তারা বলেন, যারা আজ শান্তির ধর্ম ইসলামের নাম দিয়ে জনসাধরণের মনে ভীতিসঞ্চার করে ইসলামের পবিত্রতম দর্শনকে কলুষিত করার অপপ্রয়াস চালাচ্ছে, তাদের জীবনাদর্শে মহানবী (দ.) কর্তৃক প্রদর্শিত বদর যুদ্ধে মুসলিম সৈন্য বাহিনীর মধ্যকার ফুটে উঠা নীতি-নৈতিকতা প্রস্ফুটিত হয়নি বললেই অত্যুক্তি হবে না। বিশ্বময় গুপ্তহত্যা রোধ করে শান্তিকামী নিরহ জনসাধরণের মধ্যে শান্তি শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করার ক্ষেত্রে ঐতিহাসিক বদর যুদ্ধের মর্মবাণীর প্রতিফলন ঘটুক- এটাই বিশ্বমানবতার করজোর আহ্বান। বক্তারা আরো বলেন, বিশ^ব্যাপী করোনার ভয়াবহতা দিন দিন বেড়েই চলছে। আমাদের দেশেও মরণঘাতি করোনার আক্রমণ বাড়ছে। এই ভয়াবহ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সরকারের নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। সাধারণ মানুষ বিনা কাজে ঘরের বাইরে যাতে ঘুরাফেরা করতে না পারে সেব্যাপারে প্রশাসনকে আরো কঠোর হতে হবে। কারো কাছে রোগের উপসর্গ দেখা দিলে দ্রুত চিকিৎসকের শরানাপন্ন হওয়ার এবং মহামারী করোনা দুর্যোগে সমাজের বিত্তশালীদের অসহায় মানুষের পাশে থাকার উদাত্ত আহবান জানান।

Print Friendly and PDF